Goodman Travels

বুড়োদের ‘পালানোর’ ম্যাচে জয় আনলেন যে দুই তরুণ

একজনের বয়স এখনো ১৯’র ঘরে। টি-টোয়েন্টির অভিজ্ঞতা বলতে এক ম্যাচ। আফিফ হোসেন। আরেকজন ২৩’এ পা দিলেও খেলেছেন আটটি ম্যাচ। মোসাদ্দেক হোসেন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চাপের মুখে সিনিয়ররা যখন এসেছেন আর গেছেন, এই দুজন তখন বুক চিতিয়ে লড়াই করে শেষ ওভারে দলকে ৩ উইকেটের জয় এনে দিয়েছেন।

মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে টি-টোয়েন্টি ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে দুই তরুণ তুর্কি ৮২ রানের জুটি গড়ে দলকে জয় এনে দেন। শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে আউট হওয়ার আগে আফিফ করেন ৫২ রান। মোসাদ্দেক অপরাজিত থাকে ৩০ করে।

জিম্বাবুয়ে টস হেরে আগ ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ১৮ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪৪ রান করে। সাকিবের দল জয় তুলে নেয় ২ বল হাতে রেখে।

আফিফ যখন ক্রিজে আসেন, তখন ৪০ বলে দরকার ছিল ৮০ রানের বেশি। সেখান থেকে মোসাদ্দেককে নিয়ে শেষ ১৮ বলে বাকি রাখেন ২৮ রান। এরপর ১২ বলে ১৫। ৬ বলে ৫!

বাংলাদেশ পাওয়ার প্লেতেই চার উইকেট হারিয়ে ফেলে, রান আসে ৩৪! এই সময়ে একে একে ফিরে যান লিটন দাস (১৯), সৌম্য সরকার (৪), মুশফিকুর রহিম (০) এবং সাকিব আল হাসান (১)।

এই ধাক্কা কাটাতে নেমে মাহমুদউল্লাহ টিকতে পারেন ১৬ বল। দুই চারে ১৪ করে বিদায় নেন তিনি। সাব্বির রহমান করেন ১৫ বলে ১৫। এভাবে ৯.৩ ওভারে ৬ উইকেট হারানোর সময় স্বাগতিকদের স্কোরবোর্ডে জমা পড়ে ৬০।

কিছুদিন আগে আফগানিস্তানের কাছে বাজেভাবে টেস্ট হারা বাংলাদেশ যখন আরেকটি বিপদের মুখে, তখন কাউন্টার অ্যাটাকে যান দুই তরুণ তুর্কি আফিফ হোসেন এবং মোসাদ্দেক হোসেন।

এর আগে দুই পেসার আর তিন স্পিনার দিয়ে ‘যৌথ আক্রমণ’ করে জিম্বাবুয়েকে শুরুতে চেপে রাখলেও শেষ দিকের ঢিলেঢালা বোলিংয়ে লক্ষ্যটা বড় হয়ে যায় বাংলাদেশের। অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ১৬তম ওভারেই দেন ৩০ রান!

অথচ শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজের অভিষেক ম্যাচের প্রথম বলে উইকেট নেওয়ার রেকর্ড গড়েন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। ২০ ওভারের ক্রিকেটে এই রেকর্ড আছে শ্রীলঙ্কার লক্ষ্মণ সান্দাকানেরও। ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম বলে উইকেট নেন তিনি।

এদিন ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে এসেই উইকেট তুলে নেন তাইজুল। ব্রেন্ডন টেইলরকে (৬) মাহমুদউল্লাহর ক্যাচ বানান। তিনি আগে টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে থাকলেও খেলার সুযোগ পাননি।

দ্রুত উইকেট হারানোয় প্রথম পাওয়ার প্লেতে জিম্বাবুয়ে আর মাথাচাড়া দিতে পারেনি। পাওয়ার প্লে শেষ হলে রান বাড়ানোর চেষ্টা করতেই সাজঘরে ফেরেন ক্রেইগ আরভিন (১১)। তাকে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান।

চাপের মুখে লড়াই চালিয়ে যান ৩৬ বছর বয়সী হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। ৩৪ রানে যেতে যেতে তাকে থামান মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন। ২৬ বলে পাঁচটি চার এবং একটি ছয়ের মারের সাহায্যে এই রান করেন তিনি।

নবম ওভারের প্রথম বলে বিদায় নেন শেন উইলিয়ামস (২)। মোসাদ্দেকের বলে কট অ্যান্ড বোল্ড হয়ে ফেরেন তিনি।

এরপর রান বাড়িয়ে নেন ছয় নম্বর ব্যাটসম্যান রায়ান বুর্ল। ১৬তম ওভারে সাকিবের ঘাম ছুটিয়ে ৩০ রান নেন! এই ওভারেই হয়ে যায় তার অর্ধশতক। বুর্ল শেষ পর্যন্ত ৫৭ রানে অপরাজিত থাকেন।

সাকিব চার ওভারে মোট দিয়েছেন ৪৯ রান। কোনো উইকেট নেই। সমান ওভারে ২৬ রান দিয়ে এক উইকেট নিয়েছেন সাইফ উদ্দিন।

তিন ওভারে ২৬ রান দেওয়ার পর তাইজুলকে দিয়ে আর বল করাননি সাকিব। ওই একটি উইকেটই তার সম্বল। মোস্তাফিজ দিয়েছেন ৩১ রান। তার শিকারও একজন।

মোসাদ্দেক তিন ওভারে মাত্র ১০ রান দিয়ে একজনকে ফেরালেও চতুর্থ ওভার করার সুযোগ পাননি।