Goodman Travels

বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে ট্রাক্টর গ্যারেজ!

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুজানগর : পাবনার সুজানগর পৌরসভার অর্ন্তগত ১৩২ নং চর-সুজানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে ট্রাক্টর গ্যারেজ হিসাবে ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয় মাত্র ৩৩ শতাংশ জমির উপর ১৯৯১ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয় মাঠে ক্লাস চলাকালীন সময়েই ধান থেকে শুরু করে বিভিন্ন ফসল মাড়াই করে থাকেন স্থানীয় কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি। সরকারী বিদ্যালয় মাঠ এভাবে অবৈধভাবে দখল করে ট্রাক্টর গ্যারেজ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরণের কাজকর্ম করায় ঠিকমত ক্লাস করতে না পারা সহ খেলাধুলা করা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ।আর বিদ্যালয় মাঠটি অবৈধভাবে দখল করে এ ধরণের কর্মকান্ড করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় এলাকাবাসী সহ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর অভিভাবকেরা।

উক্ত বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী রিশাদ,পিয়াস সদ্দার মোছা.নাইস খাতুন বলেন বিদ্যালয়ের সামনের ছোট এই মাঠটির জায়গা দখল হয়ে যাওয়ায় আমরা খেলাধুলা করতে পারছিনা ঠিকমত এবং ক্লাস চলাকালীন সময়ে বিভিন্ন ধরনের ফসল মাড়াই এর ফলে ক্লাস করতেও আমাদের অনেক সমস্যা হচ্ছে। বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শামীমা আক্তার জানান আমি বিগত ৪ বছর আগে এই বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই এ ধরণের সমস্য দেখে আসছি। প্রভাবশালীদের ভয়ে কেউ কোন কথা বলতে সাহস পায়না। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রওশন আরা পারভিন বলেন বর্তমানে এই বিদ্যালয়ে প্রায় ২৫০ জন শিক্ষার্থী এবং ৪ জন শিক্ষক রয়েছে ।এছাড়া এই বিদ্যালয় থেকে শিক্ষার্থীরা বিগত প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহন শতভাগ পাশ করে। কিন্তু বিদ্যালয়ের সামনের এই মাঠটি দখল হওয়ায় শিক্ষার্থীরা শিক্ষার সুষ্ঠ পরিবেশ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বিদ্যালয়ের সভাপতি সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের বার বার বলার পরও মাঠটি দখল মুক্ত হচ্ছেনা।

এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলমগীর হোসেনের সাথে তার মোবাইল নম্বরে বার বার ফোন করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে সুজানগর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মিনা পারভিন জানান বিষয়টি আমার জানা ছিলনা জানার পর সহকারী শিক্ষা অফিসার কামরুজ্জামান শেখ কে বিদ্যালয়টিতে মঙ্গলবার পাঠিয়েছি বিষয়টি দেখার জন্য। এ বিষয়ে সুজানগর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আব্দুল কাদের রোকন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজিৎ দেবনাথ জানান বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে টাক্টর গ্যারেজ হিসাবে ব্যবহার ও বিভিন্ন ধরনের ফসল মাড়াই করা সহ অবৈধভাবে দখল হয়ে থাকলে অবশ্যই দখলকারীদের বিরুদ্ধে অতিদ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এদিকে বিদ্যালয়ের মাঠটি দখলমুক্ত করতে সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সহ স্থানীয় এলাকাবাসী।